১৪) কুরবানি নিয়ে সরকারের নতুন নিয়ম চাপিয়ে দেয়া সংবিধান পরিপন্থী এবং আইন যদি সবার জন্য সমান হয়, তবে সরকারও হবে অপরাধী

১৪) কুরবানি নিয়ে সরকারের নতুন নিয়ম চাপিয়ে দেয়া সংবিধান পরিপন্থী এবং আইন যদি সবার জন্য সমান হয়, তবে সরকারও হবে অপরাধী

সরকারের একটি মহল অনেকটা জোর করেই কুরবানি সংক্রান্ত কিছু কালাকানুন জনগণের উপর চাপিয়ে দিচ্ছে। বলা হচ্ছে এবার কুরবানির পশুর হাটের সংখ্যা গতবারের তুলনায় কমানো হবে, কিছু হাট রাজধানির বাইরে স্থানান্তর করা হবে। আরো বলা হচ্ছে, যার যার স্বাধীন মতো কুরবানি করা চলবে না, বরং সরকারের নির্ধারিত স্পটে সরকারের নির্ধারিত নিয়মনিতি মোতাবেক পশু জবাই করতে হবে। তবে এই নিয়মনিতি হঠাৎ করেই জারি করা হচ্ছে জনগণের কোনো প্রতিক্রিয়া কিংবা মতামত না নিয়েই।

গণতন্ত্রের ভাষা অনুযায়ী জনগণের মত না নিয়ে শুধু এককভাবে সরকারের নিতিকে চাপিয়ে দেয়া অগণতান্ত্রিক আচরণ। তাছাড়াও সংবিধানের আইনেও এই নতুন নিতি বৈধ নয়। সংবিধানের ২ (ক) ধারা মোতাবেক, “প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম, তবে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানসহ অন্যান্য ধর্ম পালনে রাষ্ট্র সমমর্যাদা ও সমঅধিকার নিশ্চিত করিবেন।”
১২ (ঘ) ধারায় বলা হয়েছে, “কোনো বিশেষ ধর্ম পালনকারী ব্যক্তির প্রতি বৈষম্য বা তাহার উপর নিপীড়ন বিলোপ করা হইবে।”
এছাড়াও ২৮ (১) ধারায় উল্লেখিত আছে, “কেবল ধর্ম, গোষ্ঠী, বর্ণ, নারীপুরুষভেদ বা জন্মস্থানের কারণে কোনো নাগরিকের প্রতি রাষ্ট্র বৈষম্য প্রদর্শন করিবেন না।”

সংবিধানের উপরোক্ত ধারাগুলো থেকে এটা স্পষ্ট যে, বাংলাদেশ সরকার সকল ধর্মের অনুসারীদের ‘ধর্ম পালন’-এর মধ্যে কোনোরূপ বৈষম্য করতে পারবে না। প্রত্যেককে ধর্মপালনে সমপরিমাণ স্বাধীনতা দিতে হবে। অর্থাৎ ‘ধর্মীয় স্বাধীনতা’ সবার সমান। এ ব্যাপারে কোনরূপ বিধিনিষেধ আরোপ করা চলবে না।

কুরবানি নিয়ে সরকার যে নিয়মনিতি জোরপূর্বক জারি করতে যাচ্ছে তা স্পষ্টভাবে মুসলমানদের ধর্মীয় স্বাধীনতার উপর হস্তক্ষেপ হওয়ায় সংবিধান মোতাবেক অবৈধ এবং সংবিধান লংঘনের অপরাধে সরকারও অপরাধী বলে সাব্যস্ত হবে।

সার্চ করুন

সর্বশেষ পোস্ট

এই সম্পর্কিত আরো পোস্ট সমূহ



১) সাবধান! গরুর গোশত খাওয়া নিয়ে ভীতি ছড়াচ্ছে ভারত নিয়ন্ত্রিত মিডিয়াগুলো

মুসলমানদের গরুর গোশত খাওয়ার প্রতি হিন্দুদের যারপরনাই বিদ্বেষ। গরু জবাই, গরুর গোশত রাখা ও খাওয়া এসবের প্রতি ভীতি ছড়ানো হিন্দুদের জাতিগত এজেন্ডা। এসব এজেন্ডা জোরপূর্বক

বিস্তারিত পড়ুন

২) পবিত্র কুরবানি নিয়ে কোন প্রকার ষড়যন্ত্র বরদাশত করা হবেনা

প্রতি বছর পবিত্র কুরবানির সময় শুরু হয় নানা ধরণের ষড়যন্ত্র। ইতিপূর্বে পবিত্র কুরবানির আগে গরুর মধ্যে ‘এ্যানথ্রাক্স’ ভাইরাসের নামে এক ধরণের ফোবিয়া (কুরবানির পশু ভীতি)

বিস্তারিত পড়ুন

৩) পবিত্র কুরবানি ‘ব্যবস্থাপনা’র নামে ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের চেষ্টা করলে দেশে গণবিস্ফোরণ ঘটতে পারে

বাংলাদেশে গরু জবাই নিয়ে বিশেষ করে পবিত্র কুরবানি ঈদের সময় ষড়যন্ত্র নতুন কোনো বিষয় না। ষড়যন্ত্র বিগত বছরগুলোতে পবিত্র কুরবানি নিয়ে সমস্যা সৃষ্টি করতে কুচক্রী

বিস্তারিত পড়ুন

৪) যে পবিত্র কুরবানির উসীলায় চাঙ্গা হয়ে উঠে গোটা দেশের অর্থনিতি

এক কুরবানির ঈদের বরকতে চাঙ্গা হয়ে উঠে গোটা দেশের অর্থনিতি। হবে না কেন? এর সাথে জড়িত রয়েছে হাজার হাজার ব্যবসা আর হাজার হাজার টাকার লেনদেন।

বিস্তারিত পড়ুন