৫৭) প্রসঙ্গ: অনলাইনে কুরবানীর গরু ক্রয়, কতটুকু শরীয়ত সম্মত ??

৫৭) প্রসঙ্গ: অনলাইনে কুরবানীর গরু ক্রয়, কতটুকু শরীয়ত সম্মত ??

এবারের কুরবানী ঈদে অনলাইনে গরু বিক্রয়ের উপর একটা আলাদা ঝোক দেখতে পাচ্ছি। আমাদের-ই-শপ, বিক্রয় ডট কম, এখানেই ডট কম, ওএলএক্স ডট কম অনেক অনলাইন শপই কুরবানীর গরুর অফার দিচ্ছে। অনলাইন বিক্রয় কেন্দ্রগুলোর অফার দেখে অনেকেই ভাবছেন, “এতই যখন সুবিধা, তাহলে হাটে ঝামেলায় না গিয়ে কুরবাণীর পশুটা অনলাইনেই কিনে ফেলি।” যারা এ ধরনের চিন্তা করছেন, তাদের জন্য কিছু জিনিস জানা প্রয়োজন, সাধারণ বস্তুর সাথে কুরবানীর বস্তুর নিয়মকানুন কিন্তু মিলবে না। যেমন আপনি সারা বছর গোশত খাওয়ার জন্য গরুর কিনতে পারেন, কিন্তু কুরবানীর জন্য যখন গরু কিনবেন তখন আপনাকে নির্দিষ্ট কিছু জিনিস ফলো করতে হবে। যেমন: আপনি জীবিত গরুকে জবাই দিয়ে খেতে পারেন, সেটা হালাল। কিন্তু কুরবানীর সময় সব গরুকে জবাই দিলে কিন্তু কুরবানী হবে না। কুরবানীর জন্য পশুর মধ্যে নির্দ্দিষ্ট কিছু বৈশিষ্ট থাকা জরুরী, যেগুলো সামনাসামনি না দেখলে বোঝা যাবে না।

আসুন জেনে নেই বিষয়গুলো:

১) পশুর শরীরে কোন ত্রুটি আছে কিনা তা দেখতে হবে: যেমন: অন্ধ, কান কাটা, শিং ভাঙ্গা, লেজ কাটা, খোড়া, দাত নেই কি না, এ সম্পর্কে হাদীস শরীফে আছে,
ক) হযরত বারা ইবনে আযিব রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু কুরবানীর পশু সম্পর্কে বর্ণনা করেন- “ নবী করিম ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘চার ধরণের পশু দ্বারা কুরবানী করা যায়না-
১) যে পশুর চোখের দৃষ্টিহীনতা সুস্পষ্ট।
২) যে পশু অতি রুগ্ন,
৩) যে পশু সম্পূর্ণ খোড়া এবং
৪) যে পশু এত জীর্ণ-শীর্ণ যে তার হাড়ে মগজ নেই।’

হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণ বললেন, আমরা তো দাঁত, কান ও লেজে ত্রুটিযুক্ত প্রাণী দ্বারাও কুরবানী করা অপছন্দ করি। তিনি বললেন, যা ইচ্ছা অপছন্দ করতে পারেন তবে তা অন্যের জন্য হারাম করবেন না।” (ইবনে হিব্বান শরীফ : ৫৯১৯, আবূ দাউদ শরীফ, নাসায়ী শরীফ, তিরমিযী শরীফ)

খ) হযরত আলী রদ্বিয়াল্লাহু হতে বর্ণিত বর্ণিত- “ নবী করিম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, আমরা যেন কুরবানীর পশুর চোখ ও কান ভালোভাবে লক্ষ করি এবং ওই পশু দ্বারা কুরবানী না করি, যার কানের অগ্রভাগ বা পশ্চাদভাগ কর্তিত। তদ্রুপ যে পশুর কান ফাড়া বা কান গোলাকার ছিদ্রযুক্ত।” (আবূ দাউদ শরীফ, নাসায়ী শরীফ, তিরমিযী শরীফ, ইবনে মাজাহ শরীফ)

গ) হযরত আলী রদ্বিয়াল্লাহু হতে আরো বর্ণিত আছে- “নবী করিম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদের শিংভাঙ্গা বা কান-কাটা পশু দ্বারা পবিত্র কুরবানী করতে নিষেধ করেছেন।” (ইবনে মাজাহ শরীফ)

২) বয়স দেখতে হবে: হাদীস শরীফে আছে: “আপনারা মুছিন্না ব্যতীত কুরবানী (যবেহ) করবেন না, তবে সংকটের অবস্থায় ছয় মাস বয়সী ভেড়া-দুম্বা যবেহ করতে পারেন।”(মুসলিম শরীফ) মুছিন্না শব্দের ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, উট ৫ বছর হলে, গরু, মহিষ ২ বছর হলে আর খাসী-বকরী, ভেড়া, দুম্বা ইত্যাদি ১ বছর হলে মুছিন্নার হুকুম বর্তায় অর্থাৎ কুরবানীর উপযুক্ত হয়। এর কম বয়সের পশুকে কুরবানী করলে কুরবানী হবেনা। তবে শুধুমাত্র ভেড়া ও দুম্বার বেলায় বলা হয়েছে, যদি ৬ মাসের দুম্বা বা ভেড়াকে দেখতে ১ বছরের মত মনে হয় তবে সে দুম্বা বা ভেড়া দিয়ে কুরবানী করলে কুরবানী শুদ্ধ হবে। (কুদূরী, হিদায়া)

এখানে দেখার বিষয় হচ্ছে, আপনি হাটে গিয়ে একটি পশুকে সামনাসামনি দেখে যাচাই-বাছাই করতে পারবেন। কিন্তু অনলাইনে মাত্র একটা ছবি দেখে কতটুকু শিওর হতে পারবেন গরুর ত্রুটিগুলো সম্পর্কে। যদি বাসায় গরু আসার পর গরু ভালো হয় তবে সমস্যা নেই, কিন্তু যদি দেখেন ঐ গরুটি কোন একটি ত্রুটি রয়েছে তখন কি করবেন ?? ঐ গরু দিয়ে কুরবানী দিলে তো আপনার কুরবানীই হবে না।

মহান আল্লাহ তায়ালা এ সম্পর্কে বলেন: ‘আল্লাহর নিকট কুরবানীর রক্ত ও গোশত পৌছায় না। পৌছায় তোমাদের তাক্বওয়া। [সূরা হজ্জ্ব:৩৭]। অর্থ্যাৎ কুরবানীতে শুধু পশু দিলেই হবে না, পশু কেনার সময় আমরা কতটুকু আল্লাহ ও উনার রাসূলের আদেশ মানলাম বা তাকওয়া’র প্রতি খেয়াল দিলাম সেটাই গুরুত্বপূণ। তাই অনলাইনে ছবি দেখে গরু কেনা কখনই পুরোপুরি শরীয়ত সম্মত হবে না।

সার্চ করুন

সর্বশেষ পোস্ট

এই সম্পর্কিত আরো পোস্ট সমূহ



১) সাবধান! গরুর গোশত খাওয়া নিয়ে ভীতি ছড়াচ্ছে ভারত নিয়ন্ত্রিত মিডিয়াগুলো

মুসলমানদের গরুর গোশত খাওয়ার প্রতি হিন্দুদের যারপরনাই বিদ্বেষ। গরু জবাই, গরুর গোশত রাখা ও খাওয়া এসবের প্রতি ভীতি ছড়ানো হিন্দুদের জাতিগত এজেন্ডা। এসব এজেন্ডা জোরপূর্বক

বিস্তারিত পড়ুন

২) পবিত্র কুরবানি নিয়ে কোন প্রকার ষড়যন্ত্র বরদাশত করা হবেনা

প্রতি বছর পবিত্র কুরবানির সময় শুরু হয় নানা ধরণের ষড়যন্ত্র। ইতিপূর্বে পবিত্র কুরবানির আগে গরুর মধ্যে ‘এ্যানথ্রাক্স’ ভাইরাসের নামে এক ধরণের ফোবিয়া (কুরবানির পশু ভীতি)

বিস্তারিত পড়ুন

৩) পবিত্র কুরবানি ‘ব্যবস্থাপনা’র নামে ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের চেষ্টা করলে দেশে গণবিস্ফোরণ ঘটতে পারে

বাংলাদেশে গরু জবাই নিয়ে বিশেষ করে পবিত্র কুরবানি ঈদের সময় ষড়যন্ত্র নতুন কোনো বিষয় না। ষড়যন্ত্র বিগত বছরগুলোতে পবিত্র কুরবানি নিয়ে সমস্যা সৃষ্টি করতে কুচক্রী

বিস্তারিত পড়ুন

৪) যে পবিত্র কুরবানির উসীলায় চাঙ্গা হয়ে উঠে গোটা দেশের অর্থনিতি

এক কুরবানির ঈদের বরকতে চাঙ্গা হয়ে উঠে গোটা দেশের অর্থনিতি। হবে না কেন? এর সাথে জড়িত রয়েছে হাজার হাজার ব্যবসা আর হাজার হাজার টাকার লেনদেন।

বিস্তারিত পড়ুন