বাতিল ফিরক্বার অন্তর্ভূক্ত মাদরাসায় কুরবানীর পশুর চামড়া দিলে তা কবুল হবেনা

বাতিল ফিরক্বার অন্তর্ভূক্ত মাদরাসায় কুরবানীর পশুর চামড়া দিলে তা কবুল হবেনা

যে কোনো দান-ছদকা, যাকাত-ফিৎরা, কাফফারা, কুরবানীর পশুর চামড়া বা তার মূল্য যে কোনো মাদরাসায় দিতে গিয়ে সাধারণ মুসলমানগণ অধিকাংশ সময়ই ভূল করে ফেলেন। অনেকেই দায়সারা ভাবে যাকে তাকেই দিয়ে দেয়। কিন্তু আমার এই দান মহান আল্লাহ পাক উনার দরবারে কবুল হবে কিনা সেটা ফিকির করেনা। যার ফলে সে দান বিফলে যায়, আমল নামায় যোগ হয়, পরকালে এর কোন বদলা পাওয়া যাবেনা। এজন্য হক্ব, নাহক্ব চিনতে হবে। আগে দেখতে হবে আমি যাকে দিচ্ছি সে হক্বানী বা হক্বপন্থী কিনা। হক্ব-নাহক্ব চেনার জন্য দৈনিক আল ইহসান ও মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ নিয়মিত পড়তে হবে।

বাতিল ফিরক্বা কারা? এ সম্পর্কে পবিত্র হাদীছ শরীফ রয়েছে। যেমন- ইমাম তিরমিযী রহমতুল্লাহি আলাইহি বর্ণিত পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “আমার উম্মত ৭৩ দলে বিভক্ত হবে, একটি দল ব্যতীত বাহাত্তরটি দলই জাহান্নামে যাবে। তখন হযরত সাহাবা-ই-কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুগণ বললেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! যে একটি দল নাযাত প্রাপ্ত, সে দলটি কোন দল? হুযূর পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, আমি এবং আমার সাহাবা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণ উনাদের মত ও পথের উপর যারা কায়েম থাকবে, (তারাই নাযাত প্রাপ্ত দল)।”

এ পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে যে, ৭২ জনের মধ্যে মাত্র এক জন হক্ব; এছাড়া বাকি ৭২ জনই বাতিল অর্থাৎ বাতিলের সংখ্যা বেশি থাকবে। সূতরাং অধিকাংশ মাদরাসাই বাতিল ফিরক্বার অন্তর্ভূক্ত পক্ষান্তরে হক্ব কেবল একটি মাদরাসা। বর্তমানে ঢাকা রাজারবাগ শরীফ উনার মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ মাদরাসা ও ইয়াতিমখানাই একমাত্র হক্ব মাদরাসা।

এই সম্পর্কিত আরো পোস্ট সমূহ



হযরত হাবীল আলাইহিস সালাম উনার ও কাবীলের কুরবানী

পৃথিবীর প্রথম কুরবানী সংঘটিত হয় হযরত আবুল বাশার ছফিউল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার যমীনে অবস্থানকালীন সময় থেকেই। হযরত আবুল বাশার ছফিউল্লাহ আলাইহিস সালাম ও উম্মুল বাশার

বিস্তারিত পড়ুন

হযরত ইসমাঈল আলাইহিস সালাম তিনিই যবীহুল্লাহ

‘তাফসীরে মাযহারী’ উনার মধ্যে উল্লেখ আছে, “এ কথা সুনিশ্চিত যে, ‘পবিত্র সূরা ছফফাত শরীফ’ উনার ১০১নং আয়াত শরীফ উনার মধ্যে উদ্ধৃতغلام حليم অর্থাৎ ‘ধৈর্যশীল পুত্র’

বিস্তারিত পড়ুন